লকডাউন মানছেন না কেউ : নেই প্রশাসনের তৎপরতা

251

 

মৌলভীবাজার :  প্রাণঘাতী কোভিড-১৯ এর সংক্রমণ ঝুঁকি এড়াতে মৌলভীবাজার জেলায় চলছে লকডাউন। গতকাল সোমবার (১৩ এপ্রিল) দুপুরে মৌলভীবাজার জেলা প্রশাসন এর পক্ষ থেকে জেলাকে লকডাউন ঘোষণা করে বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হয়,  এতে নির্দিষ্ট জরুরি কিছু পরিসেবা ছাড়া স্থল এবং জল পথে মৌলভীবাজারে আগমন এবং গমন নিষিদ্ধ এবং সব ধরনের গণপরিবহন, জনসমাগম বন্ধ থাকবে উল্লেখ করা হয়।

এ জেলায় সামাজিক দূরত্ব সহ করোনা ভাইরাস সংক্রমণ এড়াতে লকডাউন ঘোষণা করা হলেও প্রয়োজনীয় বিধিনিষেধ মানছেননা সাধারন মানুষ। নিয়মের তোয়াক্কা না করে অন্যান্য সময়ের মতোই বিশেষ প্রয়োজন ছাড়াও ঘর থেকে বের হচ্ছেন অনেকে, ছিলনা প্রশাসনেরও তেমন কোন তৎপরতা।

সকাল থেকে শহরের কোথাও আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর তেমন কোন অবস্থান বা কঠোরতা দেখাযায়নি, মৌলভীবাজার শহরে কিংবা আশেপাশে লকডাউন নিশ্চিত করতে ছিলনা প্রশাসনের কোন কড়াকড়ি কিংবা জোরালো অবস্থান।

সরেজমিনে শহরের চৌমুহনা, পশ্চিমবাজার, কুসুমবাগ শহরের কাছারি বাজার ও গুরুত্বপূর্ণ এলাকায় ঘুরে দেখা গেছে এসব চিত্র।  এসব স্থানে নানা পরিবহনে অবাধেই যাতায়াত করছেন অনেকে। শহরের বাজার গুলোতে সাধারন মানুষের ছিল উপচে পড়া ভীড়, সরকারি কোন নিয়ম ও নির্দেশনাকে তোয়াক্কা না করে করোনা ভাইরাস সংক্রমনের ঝুঁকি নিয়ে যাবতীয় কাজ করছেন সাধারন মানুষ।

সড়কে চলছে রিক্সা, অটোরিক্সা ও প্রাইভেট যানবাহন, আর মোটরসাইকেলে করে মানুষের চলাচল ছিল তুলনামূলক বেশি, দুজন আরোহী নিয়ে চলতে দেখা গেছে অনেককেই। পাড়া- মহল্লা অলিগলির ভিতরের চিত্র আরও ব্যতিক্রম , মানুষের ঝটলা পাশাপাশি বসে অনেকে আড্ডা দিতে দেখা যায়। ফার্মেসি এবং নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যের দোকানে মানুষের উপস্থিতি ছিল চোখে পরার মতো । নির্দিষ্ট সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে সাইনবোর্ডে লিখা ঝুলছে দোকানের সামনে, কেউ এসব দেখেও যেন দেখছেননা, লকডাউনে সবকিছুই চলছে স্বাভাবিক গতিতে।

মৌলভীবাজার জেলাকে লকডাউন ঘোষণার পর সচেতন মহলের অনেকে মনে করেছিলেন যারা অসচেতন হয়ে এখনো বাহিরে ঘুরাফেরা করছেন তাদেরকে ঘরে ফেরাতে সর্বোচ্চ কঠোর হয়ে মাঠে থাকবে প্রশাসন ও আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা। কিন্তু লকডাউনে এরকম কোন কিছুই নজরে আসেনি, আর জেলা স্বাস্থ্য বিভাগ বলছে লোকজন সতর্ক না হলে কমিউনিটি সংক্রমন রোধ করা যাবেনা, এতে করোনা ভাইরাস সংক্রমণ ঝুঁকি ভারতে পাড়ে।

MB TV মৌলভীবাজার :