মৌলভীবাজার শহরে অগ্নিকাণ্ডে ৫ জনের প্রাণহানি: ৭ সদস্যের কমিটি গঠন

246

 

মৌলভীবাজার : কোনো কোনো মৃত্যু পাহাড়ের চেয়েও কত ভারী হতে পারে- এরই যেন আবারও প্রমাণ হলো মৌলভীবাজার শহরে অগ্নিকাণ্ডে একই পরিবারের পাঁচজনের অগ্নিদগ্ধ হয়ে প্রাণহানির মধ্য দিয়ে। মঙ্গলবার সকাল ১০টার দিকে শহরের এম সাইফুর রহমান রোডে অ্যাম্বুলেন্স আর ফায়ার সার্ভিসের গাড়ির উৎকট সাইরনের শব্দে মানুষ আশঙ্কা করে বড় ধরনের কোনো দুর্ঘটনার। কিছুক্ষণের মধ্যেই ভেসে ওঠে মর্মন্তুদ চিত্র।

আগুন লাগা দোকান ও বাসা থেকে দগ্ধ অবস্থায় ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা যখন পরিবারের সদস্যদের বের করে আনছিলেন, তখন ওই হৃদয়বিদারক দৃশ্য সহ্য করা কঠিন ছিল। ঘটনাস্থলেই অগ্নিদগ্ধ হয়ে (সুভাস রায়, তার মেয়ে পিয়া রায় ও বোন দিপা রায়, বাগনে দিপ্তি রায় ও বৈশাখী রায়) পাঁচজন মারাযান। আহত (প্রণয় রায় মনা ও মিলন) দুজনকে উদ্ধার করে মৌলভীবাজার ২৫০শয্যা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা যায়, শহরের এম সাইফুর রহমান রোডে একটি দু’তলা ভবনের নিচতলায় সুভাষ রায় পিংকি সু-স্টোর নামে একটি জুতার দোকান পরিচালনা করতেন এবং দ্বিতীয় তলায় ভাইসহ পরিবার নিয়ে একসঙ্গে থাকতেন। নিহতদের মধ্যে দিপা রায় ও বৈশাখী সুভাষের বাড়িতে বিয়ের অনুষ্ঠানে আসেন। তারা হবিগঞ্জের উমেদনগরের বাসিন্দা। সুভাষ রায়ের মেয়ে পিংকির বিয়ে গত ২২ জানুয়ারি অনুষ্ঠিত হয়। বিয়ে উপলক্ষে আত্মীয়রা বাসায় আসেন। গতকাল সোমবার মেয়ের বউভাত শেষে বাসায় ১২জন সদস্য অবস্থান করছিলেন।

মঙ্গলবার সকাল ১০টার দিকে ভবনের নিচতলায় তাদের ব্যবসা প্রতিষ্ঠান থেকে আগুনের সূত্রপাত হয়। পরে তা পুরো ভবনে ছড়িয়ে পড়ে। বিয়ের আনুষ্ঠানিকতায় ক্লান্ত সবাই তখন ঘুমে ছিলেন। আগুন টের পেয়ে পরিবারের সদস্য ও স্বজনদের ৭ জন আশপাশের বাসিন্দাদের সহায়তায় বেরিয়ে আসেন। কিন্তু ভয়াবহ আগুনের কবলে আটকা পড়েন ৫ জন। ঘটনাস্থলেই অগ্নিদগ্ধ হয়ে তারা মারা যান।

অগ্নিকান্ডের খবর গেয়ে ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স ৪টি ইউনিট প্রায় ২ ঘন্টা কাজ চালিয়ে আগুন নিয়ন্ত্রনে আনে। পরে একে একে উদ্ধার করে ৫টি লাশ। তবে প্রাথমিক ভাবে ধারনা করা হচ্ছে বিদ্যুতের শর্টসার্কিট থেকে আগুনের সূএপাত হয়েছে,

ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের উপপরিচালক মোঃ আব্দুল্লাহ হারুন পাশা – জানান দোকানের ভিতর একটি গ্যাসের রাইজার ছিল, ঘটনার সময় রাইজার ফেটে সেখান থেকে গ্যাস লিক করে আগুন দ্রুত ছড়িয়ে পড়ে। তবে ঠিক কি কারনে আগুন লাগে তা তদন্তের পড় জানা যাবে।

সদর মডেল থানার এস.আই মো:কামাল জানান– নিহতের লাশ উদ্ধার শেষে মৌলভীবাজার ২৫০ শয্যা সদর হাসপাতালের মর্গে রাখা হয়েছে। আইনি প্রক্রিয়া শেষে তাদের পরিবারের কাছে লাশ হস্তান্তর করা হবে ।

এদিকে এ ঘটনায় কি পরিমান ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে তা এখনও জানা যায়নি, তবে অগ্নিকান্ডের এ ঘটনায় মৌলভীবাজার অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট তানিয়া সুলতানাকে প্রধান করে ৭ সদস্য বিশিষ্ট একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে, আগামী তিন দিনের মধ্যে এ তদন্ত কমিটি রিপোর্ট দেবে, আর জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে নিহতের পরিবারকে ১ লক্ষ টাকা অনুদান দেয়া হয়েছে।

পাঁচজনের মর্মান্তিক মৃত্যুতে এক প্রেসবিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে গভীর শোক ও দুঃখ প্রকাশ করেছেন পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রী মোঃ শাহাব উদ্দিন এমপি। ঘটনাস্থত পরিদর্শন করেছেন, জেলা পুলিশ সুপার ফারুক আহমদ, জেলা প্রশাসনের উর্ধতন কর্তৃপক্ষ ও পৌর মেয়র ফজলুর রহমান।
অগ্নিকান্ডের এ ঘটনায় মৌলভীবাজার শহরে বৈইছে শোকের ছায়া, ব্যবসায়িক সমিতির পক্ষ থেকে নিহতদেরর প্রতি গভীর সমবেদনা জানিয়ে স্যন্ধা ৬টা পর্যন্ত সকল ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখা হয়।

মৌলভীবাজার শহরে অগ্নিকাণ্ডে প্রাণহানি : আমরা গভীর শোকাহত।
: MB TV মৌলভীবাজার :