মাদকের আসর, নারী ধর্ষণ ও ফেইসবুকে প্রচারের ঘটনায় শাস্তির দাবী নাগরিক সমাজের

123

MB নিউজ : মৌলভীবাজার শহরে আসর বসিয়ে মাদক সেবন, নারী ধর্ষন ও ঘটনাকারীরা নিজ উদ্যোগে ফেসবুকে প্রচারের প্রতিবাদে দৃষ্ঠান্তমূলক শাস্তির ব্যবস্থা করার দাবি জানিয়েছেন সচেতন নাগরিক সমাজ।  বৃহস্পতিবার (৩ সেপ্টেম্বর) সকাল ১১ টায় শহরের চৌমুহনা চত্বরে মানববন্ধন ও স্মারকলিপি প্রদান করে এ দাবি জানান মৌলভীবাজারের সচেতন নাগরিক সমাজ।

মানববন্ধনে বক্তারা বলেন মৌলভীবাজারে গত ৩ আগস্ট শহরের সুনাপুর এলাকায় মাহমুদ এইচ খাঁনের বাসায় একটি পার্টিতে এক নারী সংঘবদ্ধভাবে ধর্ষণের শিকার হয়েছেন। বিষয়টি এখন সবারই জানা। আমরা এই ঘটনার তীব্র নিন্দা জানাই, কিন্তু এ গঠনায় পিড়িত নারী তাৎক্ষণিক কোন মামলা বা অভিযোগ করেননি।

আমরা বিষয়টি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেইসবুকের মাধ্যমে জানতে পাড়ি গত ২৫ আগষ্ট মাহমুদের ফেইসবুক স্ট্যাটাসের মাধ্যমে, ওই দিন আমরা আর জানতে পাড়ি ঘটনার দিন রাতে শহরের সুনাপুর এলাকায় মাহমুদের বাসায় কিছু তরুণ-তরুণীরা গাঁজা পার্টির আয়োজন করে। সেখানে একজন নারীবাদী ও এক্টিভিস্ট মার্জিয়া প্রভা, বাম নেতা রায়হান আনছারী, ছাত্রফ্রন্টের সজিবুল ইসলাম তুষার ও তার এক নারী বন্ধু যোগ দেন,  ওই রাতেই সেখানে সজিব নামের ছেলেটি তার নারী বন্ধুকে জোর পূর্বক ধর্ষণ করেন।  অভিযুক্ত তুষারও সোশ্যাল মিডিয়ায় (ফেইসবুক আইডিতে) স্টেটাস দিয়ে বিষয়টি স্বিকার করে তবে মেযেটির আগ্রহে এ কাজ করেছে সে তাও সোশ্যাল মিডিয়ায় স্বীকার করে।

তারা বলেন শান্তিপূর্ণ ও সুশৃঙ্খল শহর মৌলভীবাজারে সামাজিক সংগঠনের আড়ালে এমন অশ্লীল কার্যক্রম করে এরা সবাই আমাদের পরিবেশ নষ্ট করছে, আমাদের সবাইকে এদের বিরুদ্ধে সোচ্চার হতে হবে।  বক্তারা বলেন,  এই পবিত্র শহরে প্রকাশ্যে এমন কলঙ্কজনক ঘটনা এর আগে কখনও ঘটেনি, ভবিষ্যৎে আর যাতে এমন ঘটনা আমাদের প্রাণের শহরে না দেখতে হয় তাই এই অমানুষদের দৃষ্টান্তমূলক বিচারের দাবিতে আমরা মানববন্ধন করতে এসেছি।

মাদকের আসর বসিয়ে মদ্যপ অবস্থায় ধর্ষনের মত ন্যক্কারজনক ঘটনা ঘটিয়ে তা নিজেদের ফেইসবুকে প্রচার করার যে দূঃসাহস তারা দেখিয়েছে তাদেরকে অভিলম্বে গ্রেফতার করে এর দৃষ্টান্তমুলক শাস্তির ব্যবস্থা নিশ্চিতের জন্য প্রশাসনের কাছে দাবী জানান তারা।  মানববন্ধন শেষে জেলা প্রশাসক বরাবরে স্মারকলিপি প্রদান করেন সচেতন নাগরিক সমাজের নেতৃবৃন্দ।

মানববন্ধনে সচেতন নাগরিক সমাজের পক্ষ থেকে বক্তব্য রাখেন মৌলভী সৈয়দ কুদরত উল্লাহ্ ফাউন্ডেশনের সভাপতি সৈয়দ সাহাব উদ্দিন আহমদ, সচেতন নাগরিক সমাজের সভাপতি মোয়াজ্জেম হোসেন মাতুক, জেলা যৌন হয়রানী নির্মূল কমিটির সভাপতি রাশেদা বেগম, সম্মিলিত সামাজিক উন্নয়ন পরিষদের সভাপতি খালেদ চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক আলীম উদ্দিন আলীম, শেখ বুরহান উদ্দিন (রহ:) ইসলামী সোসাইটির চেয়ারম্যান এম মুহিবুর রহমান মুহিব, বাধন থিয়েটারের সভাপতি রুহেল আহমদ, সমাজসেবক কে,এম,আকলু, তরুনসমাজকর্মী মিজানুর রহমান রাসেল, আদর মাদকাসক্তি পূনর্বাসন কেন্দ্রের পরিচালক নিখিল তালুকদার, মেধা সংস্কৃতি বিকাশ পরিষদ রাজনগরের সাংগঠনিক সম্পাদক খছরুমিয়া চৌধূরী, দৈনিক কালেরকন্ঠ শুভ সংঘের সাধারন সম্পাদক তাকবীর হোসেন,তাকরীম ফাউন্ডেশনের প্রধান সমন্বয়ক সাইফুল ইসলাম জুনেদ, স্বপ্নের ঢেউ ফাউন্ডেশনের সভাপতি সৈয়দ শাহেদ আলী, মৌলভীবাজার সাইক্লিং কমিউনিটির মডারেটর ইমন আহমদ,স্পন্দন মৌলভীবাজারের সভাপতি ইহাম মুজাহিদ, সংগঠক আব্দুল মুত্তাকীন শিপলু, উই ফর বাংলাদেশের কার্যনির্বাহী সদস্য ইমরান আহমদ, কামরুল ইসলাম, সমাজকর্মী এস এস রুহিন মারুফ খান, তারেক আহমদ, মিনহাজ মুক্তি,তানভীর আহমদ, মোঃ মোস্তাাকিম, রহমান মামুন, এস,এম,বশির আহমদ, সুহিন উদ্দিন, নাইম আহমদ তালুকদার, সোহান আহমদ,অন্তর দেবনাথ, তোফায়েল আহমদ, মোহন দেব, সোহেল আহমদ, মাহবুবুর রহমান অপু, আদনান ইমন, শাহ ওমর আলী, বন্দুনীড় সামাজিক সংগঠনের সভাপতি হাবিবুর রহমান,ছাত্র কমিউনিটির সহসভাপতি মুনাইদ আহমদ মুন্না,সাধারণ সম্পাদক আহমদ রনি ।

মাদকের আসর, নারী ধর্ষণ ও ফেইসবুকে প্রচারের ঘটনায় শাস্তির দাবী নাগরিক সমাজের।MB নিউজ : মৌলভীবাজার শহরে আসর বসিয়ে মাদক সেবন, নারী ধর্ষন ও ঘটনাকারীরা নিজ উদ্যোগে ফেসবুকে প্রচারের প্রতিবাদে দৃষ্ঠান্তমূলক শাস্তির ব্যবস্থা করার দাবি জানিয়েছেন সচেতন নাগরিক সমাজ। বৃহস্পতিবার (৩ সেপ্টেম্বর) সকাল ১১ টায় শহরের চৌমুহনা চত্বরে মানববন্ধন ও স্মারকলিপি প্রদান করে এ দাবি জানান মৌলভীবাজারের সচেতন নাগরিক সমাজ। মানববন্ধনে বক্তারা বলেন মৌলভীবাজারে গত ৩ আগস্ট শহরের সুনাপুর এলাকায় মাহমুদ এইচ খাঁনের বাসায় একটি পার্টিতে এক নারী সংঘবদ্ধভাবে ধর্ষণের শিকার হয়েছেন। বিষয়টি এখন সবারই জানা। আমরা এই ঘটনার তীব্র নিন্দা জানাই, কিন্তু এ গঠনায় পিড়িত নারী তাৎক্ষণিক কোন মামলা বা অভিযোগ করেননি।আমরা বিষয়টি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেইসবুকের মাধ্যমে জানতে পাড়ি গত ২৫ আগষ্ট মাহমুদের ফেইসবুক স্ট্যাটাসের মাধ্যমে, ওই দিন আমরা আর জানতে পাড়ি ঘটনার দিন রাতে শহরের সুনাপুর এলাকায় মাহমুদের বাসায় কিছু তরুণ-তরুণীরা গাঁজা পার্টির আয়োজন করে। সেখানে একজন নারীবাদী ও এক্টিভিস্ট মার্জিয়া প্রভা, বাম নেতা রায়হান আনছারী, ছাত্রফ্রন্টের সজিবুল ইসলাম তুষার ও তার এক নারী বন্ধু যোগ দেন, ওই রাতেই সেখানে সজিব নামের ছেলেটি তার নারী বন্ধুকে জোর পূর্বক ধর্ষণ করেন। অভিযুক্ত তুষারও সোশ্যাল মিডিয়ায় (ফেইসবুক আইডিতে) স্টেটাস দিয়ে বিষয়টি স্বিকার করে তবে মেযেটির আগ্রহে এ কাজ করেছে সে তাও সোশ্যাল মিডিয়ায় স্বীকার করে।তারা বলেন শান্তিপূর্ণ ও সুশৃঙ্খল শহর মৌলভীবাজারে সামাজিক সংগঠনের আড়ালে এমন অশ্লীল কার্যক্রম করে এরা সবাই আমাদের পরিবেশ নষ্ট করছে, আমাদের সবাইকে এদের বিরুদ্ধে সোচ্চার হতে হবে। বক্তারা বলেন, এই পবিত্র শহরে প্রকাশ্যে এমন কলঙ্কজনক ঘটনা এর আগে কখনও ঘটেনি, ভবিষ্যৎে আর যাতে এমন ঘটনা আমাদের প্রাণের শহরে না দেখতে হয় তাই এই অমানুষদের দৃষ্টান্তমূলক বিচারের দাবিতে আমরা মানববন্ধন করতে এসেছি। মাদকের আসর বসিয়ে মদ্যপ অবস্থায় ধর্ষনের মত ন্যক্কারজনক ঘটনা ঘটিয়ে তা নিজেদের ফেইসবুকে প্রচার করার যে দূঃসাহস তারা দেখিয়েছে তাদেরকে অভিলম্বে গ্রেফতার করে এর দৃষ্টান্তমুলক শাস্তির ব্যবস্থা নিশ্চিতের জন্য প্রশাসনের কাছে জোর দাবী জানান তারা। মানববন্ধন শেষে জেলা প্রশাসক বরাবরে স্মারকলিপি প্রদান করেন সচেতন নাগরিক সমাজের নেতৃবৃন্দ। এ ঘটনার ২৮ দিনে (অর্থাৎ) ৩১ আগস্ট পিড়িত ওই নারী বাদী হয়ে মৌলভীবাজার মডেল থানায় সজিবকে প্রধান আসামি ও রায়হান , প্রভাকে ধর্ষণের সহযোগী উল্লখে করে এবং সোশ্যাল মিডিয়ায় তাঁর নাম ছবি ও ভিডিও প্রকাশ করায় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মোস্তফা কামাল বিজয় (কেবি খান বিজয়) নামে এক সমাজকর্মী ও ইউটিউবারের বিরুদ্ধে পৃথক দু’টি মামলা দায়ের করেছেন। এদিকে বৃহস্প্রতিবার দুপুরে মৌলভীবাজার প্রেসক্লাবের সামনে পিড়িত তরুণীর থানায় হওয়া পৃথক দু’টি মামলার সুষ্ঠ তদন্ত ও প্রকৃত দোষীদের শাস্তির দাবিতে মানববন্ধন করেছে প্রগতিশীল সংগঠন।:: MB TV মৌলভীবাজার ::নতুন সংবাদ ও তথ্যচিত্র দেখতে MB TV সাবস্ক্রাইব করে আমাদের সাথে থাকুন।

Gepostet von MB TV am Freitag, 4. September 2020

এ ঘটনার ২৮ দিনে  (অর্থাৎ) ৩১ আগস্ট পিড়িত ওই নারী বাদী হয়ে মৌলভীবাজার মডেল থানায় সজিবকে প্রধান আসামি ও রায়হান , প্রভাকে ধর্ষণের সহযোগী উল্লখে করে এবং সোশ্যাল মিডিয়ায় তাঁর নাম ছবি ও ভিডিও প্রকাশ করায় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মোস্তফা কামাল বিজয় (কেবি খান বিজয়) নামে এক সমাজকর্মী ও ইউটিউবারের বিরুদ্ধে পৃথক দু’টি মামলা দায়ের করেছেন।

এদিকে বৃহস্প্রতিবার দুপুরে মৌলভীবাজার প্রেসক্লাবের সামনে পিড়িত তরুণীর থানায় হওয়া পৃথক দু’টি মামলার সুষ্ঠ তদন্ত ও প্রকৃত দোষীদের শাস্তির দাবিতে মানববন্ধন করেছে প্রগতিশীল সংগঠন।

উল্লেখ্য গত ৩ আগস্ট মৌলভীবাজার শহরের সুনাপুর এলাকায় মাহমুদ এইচ খাঁনের (সুনাপুর প্লেইস-২২৩ নাম্বার) বাসায় একটি পার্টির আয়োজন করা হয়, ওই রাতেই সজিব তার সেই নারী বন্ধুকে জোর পূর্বক ধর্ষণ করেছেন এমন অভিযোগ তুলে গত ২৫ আগস্ট সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেইসবুকে স্ট্যাটাস দেন মাহমুদ এইচ খাঁন। আর ২৬ আগস্ট সজিব ধর্ষণের কথা অস্বীকার করে মেয়েটির ইচ্ছাতেই সব হয়েছে বলে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেইসবুকে স্ট্যাটাস দেন।