ভোক্তার সহকারী পরিচালককে লাঞ্ছিত করায় ক্ষমা চাইলেন বিলাস কর্তৃপক্ষ-জরিমানা আদায়

50

মৌলভীবাজারঃ মৌলভীবাজার জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক আল-আমিন কে লাঞ্ছিত করায় ক্ষমা চাইলেন বিলাস কর্তৃপক্ষ। জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের নিয়মিত অভিযানের সময় গত ৩০ মে বৃহস্প্রতিবার বিলাস ডিপার্টমেন্টাল স্টোর কে জরিমানা করলে ঐ প্রতিষ্ঠানের মালিক সোহাদ আহমদ তারঁ কর্মচারী ও আশপাশের ব্যবসায়ীদের দিয়ে শারীরিকভাবে লাঞ্ছিত করেন জেলা ভোক্তা অধিকারের সহকারী পরিচালক আল-আমিন কে। ভোক্তার পরিচালক লাঞ্ছিত নিউজ প্রচারের পড় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রতিবাদের ঝড় উঠে। অনেকে আইন, প্রশাসন ও প্রভাবশালিদের বল নিয়ে ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেন, সেইসঙ্গে দোষীদের শাস্তি দাবি করেন তারা। এ গঠনার তিন দিন পড় ঊর্ধতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশনায় সোমবার (৩জুন) বিকেল সাড়ে ৪টায় জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে মৌলভীবাজার ৩ আসনের সংসদ সদস্য নেছার আহমদ এর নেতৃত্বে এক বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়।

বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন জেলা প্রশাসক মোঃ তোফায়েল ইসলাম, পুলিশ সুপার মোহাম্মদ শাহ জালাল, পৌর মেয়র মো: ফজলুর রহমান, জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের সিলেট বিভাগীয় কার্যালয়ের উপ পরিচালক ফখরুল ইসলাম, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) মো: রাশেদুল ইসলাম, জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের জেলা সহকারী পরিচালক মো: আল আমিন, বিলাস ডিপার্টমেন্টাল ষ্টোরের মালিক সোহাদ আহমদ, প্রিন্ট ও ইলেক্ট্রনিক মিডিয়ার সাংবাদিক বৃন্দ, ব্যবসায়ী ফোরাম এর সদস্যবৃন্দ এবং চেম্বার অফ কমার্স এর সদস্যবৃন্দ।

বৈঠকে শহরের এম সাইফুর রহমান রোডে অবস্থিত বিলাস ডিপার্টমেন্টাল স্টোরকে ভোক্তা অধিকারের আরোপিত জরিমানা ৫০,০০০(পঞ্চাশ হাজার টাকা) পরিশোধ করেন বিলাসের মালিক সোহাদ এবং ঐ দিন ভোক্তা অধিকারের সহকারী পরিচালক আল-আমিন কে শারীরিকভাবে লাঞ্ছিত করে আইন লঙ্ঘনের দায়ে সকলের সামনে ঘটে যাওয়া ঘটনার জন্য নিঃশর্ত ক্ষমা প্রর্থনা করেন এবং ভবিষ্যতে এই ধরণের ঘটনা আর ঘটবে না বলে অঙ্গিকার করেন বিলাসের মালিক সোহাদ। তার সাথে প্রাইম মাষ্টার টেইলার্সের মালিক রাফাদ চৌধুরীও ক্ষমা প্রার্থনা করেন এবং ভবিষ্যতে এই ধরণের ঘটনা আর ঘটবে না বলেও অঙ্গিকার করেন ।

এসময় সংসদ সদস্য নেছার আহমদ বলেন গত ৩০মে ভোক্তা অধিকার অধিদপ্তরের টিমের সাথে এবং প্রতিষ্ঠানের সহকারী পরিচালক মো: আল আমিনের সাথে ঘটে যাওয়া ঘটনা অপ্রত্যাশিত। সকলকে আইনের প্রতি শ্রদ্ধা দেখাতে হবে, আইনের বাহিরে কেউ নন। এ ধরনের ঘটনায় দুঃখ প্রকাশ করে তিনি বলেন ভবিষ্যতে মৌলভীবাজারে এই ধরণের ঘটনা যাতে আর না ঘটে এ ব্যাপারে সকলকে সর্তক থাকতে হবে, আগামীতেও ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের অভিযান চলমান থাকবে এবং এই কাজে সবাইকে সহযোগিতা করার আহ্বান জানান তিনি।

উল্লেখ্য গত ৩০ মে ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের নিয়মিত অভিযানের সময় বিলাস ডিপার্টমেন্টালে গিয়ে পন্যের অতিরিক্ত দাম, বিদেশী পন্যের দাম নিজেদের মত করে নির্ধারন, দেশী পন্যকে বিদেশী ব্র্যান্ড নাম দিয়ে বিক্রি করার অভিযোগে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়,এসময় জরিমানা দিতে অস্বীকৃতি জানান প্রতিষ্ঠানের মালিক সোহাদ আহমদ, এ নিয়ে ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণের সহকারী পরিচালক আল-আমিনের সঙ্গে বাক বিতন্ডায় জড়ান তিনি। একপর্যায়ে তিনি প্রতিষ্ঠানের কর্মচারী ও আশপাশের ব্যবসায়ীদের দিয়ে তাকে শারীরিকভাবে লাঞ্ছিত করেন। পড়ে সদর সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার রাশেদুল ইসলামের নেতৃত্বে পুলিশ ঘটনা স্থলে গিয়ে থাকে উদ্ধার করে নিয়ে আসে।

:: নিজস্ব প্রতিবেদক. মৌলভীবাজার ::

নতুন সংবাদ ও তথ্যচিত্র দেখতে MB TV সাবস্ক্রাইব করে আমাদের সাথে থাকুন।